Real Time True News

পাকিস্তানে যাত্রীবাহী বিমান বিধ্বস্ত।। জীবিত ২

আপডেটেড।। ৭৬জনের মরদেহ উদ্ধার

বিএনএ, বিশ্বডেস্ক :  পাকিস্তানের একটি যাত্রীবাহী বিমান যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে করাচিতে বিধ্বস্ত হয়েছে। বিমানটিতে ৯১জন আরোহী ও ৮জন ক্রু ছিলেন।শুক্রবার বিকেলে পিআইএর জেট বিমানটি লাহোর থেকে করাচির উদ্দেশ্যে যাচ্ছিলো। পথিমধ্যে একটি আবাসিক এলাকায় বিমানটিতে আগুন ধরে বিধ্বস্ত হয়। খবর বিবিসি।

ডন অনলাইন জানায়, শুক্রবার রাতে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত দুর্ঘটনাস্থল হতে ৭৬জনের মরদেহ এবং ৩জনকে জীবিত উদ্ধার করে হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।এই ৩জনের মধ্যে ২জন বিমানের যাত্রী ও অপরজন যে বাড়ির ওপর বিমানটি বিধ্বস্ত হয়েছে সেটার বাসিন্দা। উদ্ধার কাজ শেষে বলা যাবে প্রকৃত হতাহতের সংখ্যা।

বিধ্বস্ত বিমানের আগুনে তিনটি বাড়িও পুড়ে যায়।যার ফলে নিহতদের মরদেহ খুঁজে বের করতে সময় লেগে যাচ্ছে।

বিধ্বস্ত হওয়া বিমানটি এয়ারবাস এ ৩২০ মডেলের। করাচির জিন্নাহ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কাছে একটি আবাসিক এলাকায় বিধ্বস্ত হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে দেশটির বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ৷

পাকিস্তানের বিমান চলাচল কর্মকর্তারা জানাচ্ছেন পাকিস্তান ইন্টারন্যাশানাল এয়ারলাইন্সের (পিআইএ) বিমানটিতে ৯১জন যাত্রী এবং আটজন বিমান কর্মী ছিলেন। লাহোর থেকে বিমানটি যাত্রা শুরু করে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, বিধ্বস্ত হওয়ার আগে বিমানটি দুই থেকে তিনবার জিন্নাহ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণের চেষ্টা করেছিল৷ স্থানীয় গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিমান বিধ্বস্ত হওয়ার পরের তাৎক্ষণিক ছবি প্রকাশ হয়েছে৷ এসময় দুর্ঘটনাস্থল থেকে কালো ধোঁয়া উঠতে দেখা যায়৷

দুর্ঘটনার পর সোশ্যাল মিডিয়ায় যে ভিডিয়ো সামনে এসেছে, তাতে দেখা গিয়েছে, জনবহুল এলাকার মধ্যে বিমানের ধ্বংসাবশেষ থেকে দাউদাউ করে আগুন জ্বলছে। কালো ধোঁয়ায় ঢেকে গিয়েছে চার পাশ। আতঙ্কে বাড়ি থেকে বেরিয়ে এসেছেন বহু মানুষ। শাকিল আহমেদ নামের প্রত্যক্ষদর্শী সংবাদমাধ্যম রয়টার্সকে জানান, প্রথমে একটি মোবাইল টাওয়ারে ধাক্কা মারে বিমানটি। তার পর পাশাপাশি অবস্থিত কয়েকটি বাড়ির উপর ভেঙে পড়ে।
পাক সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা গিয়েছে, এ দিন দুপুরে ১টায় লাহৌর থেকে করাচির উদ্দেশে রওনা দেয় বিমানটি। দুপুর ২টো বেজে ৪৫ মিনিটে করাচি পৌঁছনোর কথা ছিল সেটির। কিন্তু দুপুর ২টো বেজে ৩৭ মিনিটে বিমানটির সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় কন্ট্রোল রুমের। তার কিছু ক্ষণ পরই দুর্ঘটনা ঘটে। করাচি বিমানবন্দর সংলগ্ন মডেল কলোনির কাছে জিনা গার্ডেন এলাকায় লোকালয়ে বিমানটি ভেঙে পড়ার খবর আসে। তাতে আশেপাশের বেশ কয়েকটি বাড়িতেও আগুন ধরে যায়।

ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণ এবং উদ্ধার কাজে অংশ নিতে হেলিকপ্টার পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছে পাকিস্তানের সামরিক বাহিনী৷

বিএনএ/ এইচ.এম, এসজিএন।