Real Time True News

বিধ্বস্ত বাংলা দেখলেন মোদি, দিলেন হাজার কোটি টাকা

বিএনএ, বিশ্বডেস্ক : আম্পানে বিধ্বস্ত বাংলাকে এক হাজার কোটি টাকা দেবে কেন্দ্রীয় সরকার। মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির ডাকে সাড়া দিয়ে বেলা ১১টা নাগাদ বাংলায় এলেন প্রধানমন্ত্রী।আম্পানের বিপর্যয় পরিস্থিতি দেখতে আকাশপথে বসিরহাটে এসে বৈঠক করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী। ছিলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখর, মুখ্যসচিব রাজীব সিনহা প্রমুখ।

‌হেলিকপ্টারে করে আমফান বিধ্বস্ত বাংলা পরিদর্শন করলেন তিনি। বসিরহাট কলেজের পেছনে তৈরি হয়েছিল হেলিপ্যাড। সেখানেই বায়ু সেনার হেলিকাপ্টারে  করে বেলা বারোটা দশ নাগাদ প্রধানমন্ত্রী, মুখ্যমন্ত্রী ও রাজ্যপাল নামেন। বসিরহাট কলেজের ঘরে তাঁরা বৈঠক করেন। সামাজিক দূরত্ব মেনেই সমস্ত কর্মসূচী সম্পন্ন হয়। সংবাদ মাধ্যমের সেখানে প্রবেশের অনুমতি ছিল না।

পরে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী। প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই কঠিন সময়ে তিনি বাংলার পাশে আছেন। বাংলাকে আবার স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনার চেষ্টায় তিনিও কাঁধে কাঁধ মেলাবেন। এছাড়া তিনি ঘোষণা করলেন মৃতদের পরিবারকে প্রধানমন্ত্রী তহবিল থেকে দু’‌লাখ টাকা করে দান করবেন। একইসঙ্গে আহতদের পরিবারকে ৫০ হাজার টাকা দেবেন। এদিন ওডিশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়েকও মুমতা ব্যানার্জিকে ফোন করে সবরকম সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন

এদিকে মোদির সফরকে নির্বাচনী সফর আখ্যায়িত করেন কর্নাটকের প্রদেশ কংগ্রেস। এক টুইটে বলা হয়,  ‘পরের বছর বাংলায় বিধানসভা নির্বাচন, তাই এবার তিনি বাংলার বিধ্বস্ত চেহারা পরিদর্শনে গেলেন। নয়ত, ব্যাপক ধস ও বন্যায় ভেসে গিয়েছিল কর্নাটকের বহু এলাকা। তখন তো এলেন না তিনি দেখতে।’ ‌
‌উল্লেখ, গত বুধবার বিকেলে বাংলার বুকে আছড়ে পড়ে আম্পান সাইক্লোন। টানা চার ঘণ্টার ওই ভয়াবহ দাপটে ক্ষতির মুখে পড়ে বাংলা। ‌মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির ডাকে সাড়া দিয়ে বেলা ১১টা নাগাদ বাংলায় এলেন প্রধানমন্ত্রী। হেলিকপ্টারে করে আকাশপথে আমফান–বিপর্যয় পরিস্থিতি পরিদর্শন করলেন মোদি। এই ঘটনার উল্লেখ করে মোদি সরকারের সমালোচনা করল কর্নাটকের প্রদেশ কংগ্রেস। একটি টুইটে তারা লিখল, ‘‌বাংলার এই ব্যাপক ক্ষতিতে তাদের পাশে রয়েছি আমরা। কিন্তু নরেন্দ্র মোদির দ্বিচারিতার বিরোধিতা করছি। প্রধানমন্ত্রী বাংলার বিধ্বস্ত এলাকা পরিদর্শন করতে সেখানে গেলেন। কিন্তু কর্নাটকে যখন ধস ও বন্যা হয়েছিল, তখন তো একবারও সেখানে আসেননি তিনি। বাংলায় পরের বছর নির্বাচন রয়েছে ঠিকই, কিন্তু এখানেও মানুষ কষ্টে আছে।’
গত বছর আগস্ট মাসে কর্নাটকে ভয়াবহ বন্যা হয়। একইসঙ্গে ধসও। ২২টি জেলার ১০৩টি তালুকের ২,৭৯৮টি গ্রাম ভেসে গিয়েছিল বন্যায়। প্রায় সাত লক্ষ মানুষকে অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। ৯১জন মানুষ সেবার প্রাণ হারিয়েছিলেন। ৩,৪০০টি গবাদি পশুর মৃত্যু হয়েছিল। ত্রাণ পাঠাতে দেরি করায় বিরোধী কংগ্রেস সমালোচনা করায় কেন্দ্র রাজ্যকে এক হাজার ২০০ কোটি টাকার একটি অন্তর্বর্তী ত্রাণ মুক্তি দিয়েছিল। যেখানে বন্যায় ক্ষতি হয়েছিল প্রায় ৩৫,১৬০.৮১ কোটি টাকার।