Real Time True News

ট্রাকের কেবিনে ধর্ষণ ও হত্যা!

বিএনএ,রংপুর: রংপুর নগরীতে একটি ট্রাকের কেবিন থেকে মাহমুদা আক্তার মৌসুমী নামে এক নারীর মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তাকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। শুক্রবার( ২২ মে) সন্ধ্যায় মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।ওই নারী ঢাকায় গার্মেন্টসে কাজ করতেন বলে জানা গেছে। তার বাড়ি লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার  আমবাড়ি এলাকায়।

ট্রাক চালক ও হেলপারের বরাত দিয়ে তাজহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) রোকনউদ্দিন জানান, শফিকুল ইসলাম নামের এক চালকের ফোন কলে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে এগারোটায় টঙ্গীর হারিকেন এলাকা থেকে মাহমুদা আক্তার মৌসুমী নামের ওই গার্মেন্টস কর্মীকে ট্রাকে উঠায় তারা। এরপর তাকে নিয়ে ঢাকায় গিয়ে মশারি ভর্তি করে রংপুরের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। পথিমধ্যে আব্দুল্লাহপুরে এসে আজিজুলের ভাতিজা বদি মিয়া ওই ট্রাকে ওঠে। চান্দরা পার হওয়ার পর বদি জানায় যে, মেয়েটি মারা গেছে।

শুক্রবার সকালে রংপুর ক্যাডেট কলেজের সামনে এসে ট্রাকটি দাঁড় করায় চালক। তারা বিষয়টি পুলিশকে অবিহিত না করে লালমনিরহাটে থাকা তার পিতা মোস্তফাকে জানায়। তার পিতা রংপুরে এসে মেয়েকে দেখে জানায় যে, তাকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে। পরে মরদেহ না নিয়েই ফিরে যান তিনি।

ওসি আরও জানান, ঘটনাটি জানার পর সন্ধ্যা থেকেই পুলিশ সেখানে পাহারা বসিয়েছে। ড্রাইভার ও হেলপারকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। মরদেহের ময়নাতদন্তের পরই ওই নারীর মৃত্যুর কারণ জানা যাবে। মৃত গার্মেন্টস কর্মী মৌসুমি, ট্রাকের চালক, হেলপার, চালকের ভাতিজা ও শফিকুল ইসলামের গ্রামের বাড়ি গ্রামের এক এলাকাতে বলে জানান তিনি।

ওই ট্রাকটিতে খাদ্য পরিবহনের সাইনবোর্ড থাকলেও সেখানে গরুর মশারি নিয়ে আসা হয়েছিল। যা নগরীর স্টেশন রোডের খান বেডিংয়ে নামিয়ে দেয়ার কথা ছিল।

আর করিম চৌধুরী