Real Time True News

বুড়িগঙ্গায় লঞ্চ ডুবি: ৩২ মরদেহ উদ্ধার

বিএনএ,ঢাকা: (আপডেট) বুড়িগঙ্গা নদীতে ৫০জন যাত্রীবোঝাই একটি লঞ্চ ডুবে গেছে। সোমবার (২৯ জুন) সকালে রাজধানীর শ্যামবাজার এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। উদ্ধার কাজ চালায় নৌবাহিনী ও ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরিরা। নদীতে থেকে ৩২ জনের মরদেহ উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা।এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স সদর দপ্তরের ডিউটি অফিসার রোজিনা আক্তার। মৃতের সংখ্যা বাড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

ময়ুর ২ নামের একটি লঞ্চের ধাক্কায় অর্ধশতাধিক যাত্রী নিয়ে মর্নিং বার্ড লঞ্চটি ডুবে যায়। কুমিল্লা ডক এরিয়ার পাশে লঞ্চটি ডুবেছে বলে জানা গেছে। কতজন জীবিত উদ্ধার হয়েছে সে সম্পর্কে নিশ্চিত না হওয়ায় কতজন নিঁখোজ তা বলা যাচ্ছে না।তবে বেসরকারিভাবে নারী ও শিশুসহ মোট ২৫জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয় বলে জানা গেছে।

বুড়িগঙ্গা নদীতে যাত্রীবোঝাই একটি লঞ্চ ডুবি

ডুবে যাওয়া লঞ্চটির নাম ‘মর্নিং বার্ড’। এটি মুন্সিগঞ্জ থেকে ঢাকা আসছিলো। মর্নিং বার্ড লঞ্চটি সদরঘাটে ভেড়ানোর আগ মুহূর্তে চাঁদপুরগামী ময়ূর-২ লঞ্চটি ধাক্কা দেয়।
দুর্ঘটনার স্থান সদরঘাটের নিকটে হওয়ায় দ্রুত উদ্ধার কাজ চালানো সম্ভব হয়েছে বলে উদ্ধারকারীরা জানান।

সর্বশেষ: উদ্ধার করা ৩২ জনের মৃতদেহের মধ্যে ৩১টি মরদেহ শনাক্ত করে স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। বাকি একটি মরদেহ এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত শনাক্ত করা সম্ভব হয়নি।এদিকে লঞ্চডুবির ঘটনায় শোক জানিয়েন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ঘটনা তদন্তে গঠন করা হয়েছে তদন্ত কমিটি।

নারায়ণগঞ্জ থেকে ঘটনাস্থলের পথে রয়েছে উদ্ধারকারী জাহাজ প্রত্যয়।ফায়ার সার্ভিসের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, লঞ্চের অবস্থান শনাক্ত করা হয়েছে। তবে লঞ্চের ভেতরেই আটকা পড়ে থাকতে পারেন অনেকে।লঞ্চটি তোলা হলে সেখানে আরো মৃতদেহ থাকতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

লঞ্চডুবিতে বোনসহ নিহত হয়েছেন দিদার হোসেন। সাত মাস বিয়ের সময় স্ত্রীর সঙ্গে দিদার

 

দিদার-রোকসানার ৭মাস আগে বিয়ে হয়। মুন্সীগঞ্জের রিকাবীবাজারের পশ্চিমপাড়ার দিদার হোসেন (৪৫) ছিলেন ঢাকার রহমতগঞ্জের ডালের ব্যবসায়ী। সোমবার সকালে বড় বোনের অসুস্থ স্বামীকে দেখতে বোন রুমা বেগমকে (৪০) নিয়ে তিনি ঢাকার উদ্দেশে লঞ্চে করে রওনা হন। দুর্ঘটনায় বোনসহ তিনি নিহত হন।  জানান, মাত্র সাত মাস আগে বিয়ে করেছিলেন দিদার।

বিএনএ/আর করিম চৌধুরী, এসজিএন